ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি ঘরোয়া উপায়- যৌনাঙ্গে চুলকানির ঔষধ

ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি

শরীরের অ্ন্যান্য অংশ যেভাবে আমরা প্রতিদিন গোসলের সময় পরিষ্কার করেই সে তুলনায় গোপনাঙ্গ নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না। এছাড়া বাইরে বের হলে বাতাসের কারণে শরীরের অন্যান্য অংশে ঘাম শুকিয়ে গেলেও গোপনাঙ্গ  ওইভাবে বাতাস লাগতে পারে না এবং ঘাম সহজে শুকাতে পারে না যার। ফলশ্রুতিতে বিভিন্ন রকমের ভাইরাস ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ হয় এবং ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি দেখা দেয়। অল্পতে এ সমস্যাগুলো ভালো চিকিৎসা না করলে পরবর্তীতে  মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।

ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি
ছবি – ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি

 আজকে আমরা মূলত  ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি কারণ ও ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি ঘরোয়া চিকিৎসা আলোচনা করব। যদিও আমরা বারবার ছেলেদের ব্যাপারে বলছি কিন্তু এই নিয়মগুলো ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের জন্য সমানভাবে কার্যকরী। 

যৌনাঙ্গে চুলকানি কেন হয়

কোন রোগ এর চিকিৎসা করার পূর্বে জানতে হবে রোগটি হওয়ার কারণ কি। এতে করে রোগ প্রতিরোধ করা অনেকটা সহজ হ… চলুন দেখে নেয়া যাক ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি প্রধান কারনগুলো কি কি

  •  ছত্রাকের আক্রমণ – ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি অন্যতম প্রধান একটি কারণ হচ্ছে ছত্রাকের আক্রমণ নামের একটি ছত্রাক। 
  •  গোসলের সময় আমরা শরীরের বিভিন্ন অংশে ভালোভাবে পরিষ্কার করি। সে তুলনায় গোপনাঙ্গের চারপাশে ভালোভাবে পরিষ্কার করার সুযোগ হয় না অনেক সময়। এটি ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি হওয়ার আরেকটি প্রধান কারন
  •  এছাড়াও অন্তর্বাস বা শর্ট পেন্ট নিয়মিত পরিষ্কার না করলে চুলকানোর মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে।

গোপনাঙ্গে চুলকানি হলে করনীয়

শরীরে অন্যান্য রোগের মত ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি এড়িয়ে চলতে হলে আপনাকে কিছু নিয়ম ফলো করতে হবে। চলুন দেখে নিই গোপনাঙ্গে চুলকানি হলে করণীয় কি

  •  যথাসম্ভব গোপনাঙ্গ পরিষ্কার রাখতে হবে।
  •  রঙিন টিস্যু ও সুগন্ধিযুক্ত সাবান অতিরিক্ত ব্যবহার করা ঠিক নয়।
  •  গোসলের পর ভেজা কাপড় বেশিক্ষণ থাকা যাবে না। এতে করে ছত্রাক জন্মানোর জন্য সহজ হয়।
  • নিয়মিত গোসল করুন।
  •  একাধিক ব্যক্তির সাথে যৌন মিলন এই রোগের অন্যতম প্রধান একটি কারণ।
  •  সহবাসের পর প্রস্রাব করুন এবং যৌনাঙ্গ ভালভাবে পরিষ্কার করু…
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন।
  •  শরীরের স্থূলতার সমস্যা থাকলে ওজন কমানোর চেষ্টা করুন ।
  • সুতি কাপড়ের আন্ডারওয়্যার পরুন। মসৃণ প্লাস্টিকের কাপড়ের অন্তর্বাস শর্ট প্যান্ট পরা ঠিক নয় এতে করে গোপনাঙ্গ ঘেমে যায় এবং ঘা তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

গোপনাঙ্গে চুলকানির ঘরোয়া চিকিৎসা

উপরে আমরা ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি কারণ সম্পর্কে জানলাম। এখন আমরা এই রোগ থেকে মুক্তির ঘরোয়া কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করবো। 

  •  বেকিং সোডা দিয়ে গোসল – গবেষণায় দেখা গেছে বেকিং সোডা এন্টিফাঙ্গাল হিসেবে কাজ করে। এক বালতি পরিষ্কার পানিতে এক কাপ বেকিং সোডা মিশিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন এরপর পানি দিয়ে ভালোভাবে গোসল করুন এতে করে শুধুমাত্র গোপনাঙ্গ নায়ক পুরো শরীর যত জায়গায় ছত্রাকজনিত রোগ কোন সমস্যা আছে তা অনেকটাই সুস্থ হয়ে যাবে।
  • নারকেল তেল ব্যবহার করুন – গোপনাঙ্গের যেসব স্থানে চুলকানি সমস্যা হচ্ছে সেখানে নিয়মিত নারিকেল তেল ব্যবহার করুন এতে করে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া বিস্তার ঘটাতে পারবে না এবং দ্রুত সমস্যা দূর হয়ে যাবে।
  • সুতির অন্তর্বাস পড়ার চেষ্টা করুন – বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন স্টাইলে বিভিন্ন প্লাস্টিকের অন্তর্বাস বা আন্ডারওয়্যার কিনতে পাওয়া যায়। কিন্তু এই ধরনের অন্তর্বাস গুলো পডরলে শরীরের নিম্নাংশে বাতাস ভালোভাবে যাওয়া-আসা করতে পারে না। যার কারণে ঘাম জমে যায় এবং তার পরবর্তীতে শরীরের ক্ষতিকর তা সৃষ্টি করে এবং চুলকানো সমস্যা দেখা দেয়।
  •  নিমের পাতা ব্যবহার করুন – ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি সমস্যা আছে যেখানে নিমপাতা বেটে লাগাতে পারেন আমরা কমবেশি সবাই জেনে নিন গুণাবলী।

গোপনাঙ্গের চুলকানি দূর করার ক্রিম

উপরে আমরা ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি সমস্যা সমাধানের কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করেছি। কিন্তু অনেকেই আমাদের কাছে জানতে চান এই রোগের থেকে বাঁচার জন্য বাজারে কোন ক্রিম পাওয়া যায় কিনা। এখন আমরা এমন একটি ক্রিম নিয়ে আলোচনা করবো যা ছেলেদের গোপন অঙ্গ চুলকানি ভালো করার জন্য খুব ভালোভাবে কাজ ক… এবং এটা অনেক পুরনো সময় থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে এছারা কিন্তু আপনি খুবই অল্প দামে কিনতে পারবেন।

পেভিসন ক্রিম ব্যবহার করুন – পেভিসন ক্রিমের নাম অনেকে হয়ত শুনেছেন। ছোটবেলা থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে শরীর যেকোনো অংশে চুলকানো সমস্যা হলে আমাদের মা-বাবা এই ক্রিমটি ব্যবহার করতেন। একটি এন্টিব্যাকটেরিয়াল এবং ক্ষতিকর ভাইরাসের বিরুদ্ধে খুব ভালোভাবে কাজ করে। আপনার শরীরে নির্ণয় যদি যেকোনো জায়গায় চুলকানি সমস্যা হলে স্থানটি পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন তারপর সে স্থানে ক্রিমটি দিনে দুইবার লাগিয়ে নিন। এভাবে ব্যবহার করলে আশা করা যায় ৩ দিনের মধ্যেই আপনার চুলকানো কমে যাবে এবং ঘা থাকলে তা শুকিয়ে যাবে।

ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি

উ[পরে ছেলেদের গোপনাঙ্গের পাশে চুলকানি কারন,  যৌনাঙ্গে চুলকানির ঘরোয়া চিকিৎসা ও ক্রিম নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। আশা করছি ব্লগটি আপনাদের উপকারে এসেছে। ভালো লাগলে আপনার প্রিয়জনদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন ধরনের পোষ্ট করা হয় অন্যান্য পোস্টগুলো ব্যবহার অনুরোধ জানিয়ে আজকের মত এখানেই শেষ করছি। এছাড়া আপনার কোন প্রশ্ন বা অভিযোগ থাকলে এই পোস্টে কমেন্ট করতে পারেন আপনার কম্পিউটার উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব। ধন্যবাদ

ইজি টেকিং - একটি বাংলা ব্লগিং প্লাটফর্ম। এখানে বাংলা ভাষায় শিক্ষা ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন জানা-অজানা তথ্য প্রকাশ করা হয়। বাংলা ভাষায় সবার মাঝে সঠিক তথ্য পৌছে দেয়াই আমাদের লক্ষ্য।

Leave a Comment