মোবাইল হ্যাং করলে কি করবেন ?

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা!

কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন।

আমরা গেমিং করতে গিয়ে যে অনেকেই দেখা যায় যে ফোন হ্যাং করে আবার অনেকে দেখা যায় যে আমরা ঠিকঠাকমতো ইউজ করিনা তো কয়দিন পরে দেখা যাচ্ছে নতুন ফোন টা কিছুদিন গেলেই হ্যাং করে। আজকের পোস্ট এ আপনি দেখার পর যাদের ফোন হ্যাং করতেছে তারা আশা করি ফোন হ্যাং ইন্টারফেস করবেন না এবং তার পাশাপাশি আগামীতে যেন আপনাদের ফোন হ্যাং না করে সে বিষয়টা নিয়ে আমি আজকে বিরুদ্ধে কথা বলে পুরো পোস্ট টি মনোযোগ সহকারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সঙ্গে থাকবেন। চলুন তাহলে শুরু করি:

মোবাইল হ্যাং করলে কি করবেন ?

মোবাইল হ্যাং করলে কি করবেন ?

 

প্রথমে আপনাকে যে কাজটা করতে আপনার মোবাইলে যদি গেমের পরিমাণ বেশি থাকে তাহলে আপনি আপনার মোবাইলে বড় কোন গেমস ডাউনলোড করে রাখবেন না বা ইউজ করবেন না এবং তার পাশাপাশি বড় কোন ভিডিও ফাইল এইচডি রেজুলেশনের বাকেরি লোকেশনে রেজুলেশনের ফাইল ডাউনলোড করে মোবাইলে রাখবেন না বিকজ এই ফাইল গুলো যখন আপনি ইউজ করবেন বা বড় ক্যামেরা অ্যাপ গুলো যখন রান করাবেন তখন প্রচুর র্যাম এর প্রয়োজন হয় যেহেতু আপনার কোন অলরেডি
র্যাম কম যখন আপনি দেখা যাবে এই ভিডিওগুলি স্টার্ট
ওপেন করলেই আপনার ফোন হ্যাং হতে পারে শুরুর দিকের না হলো কিছুদিন যাওয়ার পর থেকে আপনার ফোনে দেখবেন হ্যাং করতে থাকবে তিন সেকেন্ড যে জিনিসটা আপনাকে করতে হবে সেটা হল থ্রিডি ওয়ালপেপার আপনি আপনার মোবাইলে একেবারেই ইউজ করবেন না।

মোবাইল হ্যাং করলে কি করবেন ?

আই মিন থ্রিডি লাইভ ওয়ালপেপার যেগুলা কি নড়াচড়া করে এই ধরনের কোন ওয়ালপেপার আপনি আপনার ফোন ইউজ করবে না বিয়ে করি ধরনের ওয়ালপেপারগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে রেম ইউজ করতে থাকে যেটা আপনার ফোনের জন্য লং টাইম ইউজ করার ক্ষেত্রে মনে তো খারাপ এবং তার পাশাপাশি এই ধরনের থ্রিডি ওয়ালপেপার বা লাইভ ওয়ালপেপার ইউজ করা কারণ আপনার ফোন হ্যাং করার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায় সবচাইতে ইম্পর্টেন্ট জিনিসটা একেবারে মেইনটেইন করিনা সেটা হল আপনার ফোনটা যদি 32 জিবি স্টোরেজ 963 জিবি স্টোরেজ হয় বা 256gb প্যারামিটার স্টোরেজের হয়ে থাকে তাও আপনি আপনার ফোনের 100% স্পেস খালি রাখবেন আপনার ফোনটা যদি 32 জিবি সাইজের হয় স্টোরেজঃ তাহলে তার 16gb স্পেসি আপনার খালি রাখতে হবে তাহলে আপনার ফোনটা ইনশাল্লাহ হ্যাং করবে না এবং আগামীতে জয়েন করার সম্ভাবনা একেবারেই থাকবে না এখন আপনারা বলতে পারেন যে আমার স্টোরেজঃ অনেক কম তাহলে আমি কিভাবে সবকিছু রাখব সেই জন্য আপনি যেটা করুন একটা ভালো মেমোরি কার্ড ইউজ করবেন তাহলে আপনার ফোনে আর স্পেস নিয়ে সমস্যা থাকবে না এবং ভালো মেমোরি কার্ড ইউজ করার কারণে ফোন হ্যাং করবে না।

মোবাইল হ্যাং করলে কি করবেন ?

কম দামি লো কোয়ালিটি কোন মেমোরি কার্ড ইউজ করবেন না এতে আপনার ভালো ফোন খারাপ হয়ে যাবে এবং ভালো মেমোরি কার্ড কিভাবে কিনবেন বা কোন ধরনের মেমোরি আপনার ফোনের জন্য কিনলাম পারফেক্ট হবে সেই বিশ্ববিদ্যালয় চ্যানেলে ভিডিওটি আপনারা চালায় বাটনে ক্লিক করে কি দেখে মেমোরি কার্ড কিনবেন সে ভিডিওটা দেখে নিস তাহলে একজন সম্পূর্ণ আইডি হয়ে যাবে যে কোন মেমোরি কার্ড আপনার ফোনের জন্য কেনা উচিত এবং কোন মেমোরি কার্ডটা কিনা আপনার ফোনের স্পিড আরো বেড়ে যেতে পারে আপনাকে করতে হবে সেটা হলো আমরা প্রতিদিনই দেখা যায় যে অনেক ছবি তুলে থাকে বাইরে গেলে তার পাশাপাশি দেখা যায় টুকটাক ভিডিও করে থাকি ইভেন এটাও হয় অনেক সময় অনেক নতুন নতুন অ্যাপস ডাউনলোড করে আমার ট্রাইল দিয়ে দেখি যে সেটা কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায় যে এই অ্যাপস ছবি ভিডিও গুলো আমাদের মোবাইলে রয়েই যায় গুলা ডিলিট করি না পেলেও দেই না সব আগের মতোই থাক এতে আলটিমেটলি কিন্তু আপনার স্ট্রেসফুল হতে থাকে প্রত্যেক দিন প্রতি সপ্তাহে একদিন চেষ্টা করবেন আপনার ফোনে যত অপ্রয়োজনীয় ছবি ভিডিও ফাইল তার পাশাপাশি যদি কোন অ্যাপস থাকে সেগুলো ডিলিট করে দেয়ার জন্য এতে আপনার স্টোরেজঃ বেঁচে থাকবে এবং আপনি শান্তিতে ফোন ইউজ করতে থাকবেন।

কারণ অনেকগুলো একজনের মোবাইলে থাকে দেখা যাবে আপডেটের বিষয় থাকে দেখা যাবে অ্যাপস গুলো মাঝে মাঝে আপনার আম করতেছেন বই অ্যাপস থেকে নোটিফিকেশন আসতেছে স্পেশাল তো অনেক কষ্ট হচ্ছে তাই না অবশ্যই অবশ্যই সপ্তাহে একবার প্রতিদিন যদি সম্ভব হয় একবার কল হলো অপ্রয়োজনে যত ফাইল ফোল্ডার যা আছে গুলা ডিলিট করে দিবেন আপনার ফোন থেকে নাম্বার 53 বিষয়টা নামের আগে কথা বলেছি সেটা আপনার ফোনে কোন third-party এন্টিভাইরাস স্ক্যান আনইন্সটল করে দেন আর ফোন করার দরকার নাই ফোনে অলরেডি একটা করিস কেনা থাকে যেটা ফোনের সাথে বিল্ট-ইন থাকে সেই স্ক্যানার্স করে আপনি আপনার ফোনে যা অপ্রয়োজনীয় জিনিস আছে স্ক্যান করে সেটা পিন করে দিতে পারেন এটা আপনার জন্য ভালো অপরের জন্য যেসব third-party এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার থাকে যত স্মৃতি গুলাই স্পেশাল আর কি এগুলো নিজেরাই উল্টা ভাইরাস এবং এগুলোর মাধ্যমে উল্টা মেয়েরা যদি আপনি আমিও করে নিন টাকা দিয়ে কিনে হেভি লেভেলের কোন আপনি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ইউজ করে দেন ঠিক আছে বাট ফ্রী এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার মানে হল ফ্রী ভাইরাস আপনার মোবাইলে নিয়ে আসবে সো ভেরি মাচ কেয়ারফুল থাকবেন।

তত ফ্রী এন্টিভাইরাস ফ্রি চ্যানেল রয়েছে আপনার ফোনে এগুলো ডিলিট করে দেশটা করুন আপনার ফোনের সাথে থাক আজকে না টা ইউজ করার জন্য তার নাম্বার সিক্স খুবই ইনপরটেন একটা বিশেষ আপনার ফোনের যত অ্যাপস রয়েছে প্রত্যেকটি যখনি আসবে সদস্যতা আপলোড করে ফেলবেন গুলো দেরী করবেন আপনার মোবাইলে অলয়েজ ট্রাই করবেন সবগুলো এর চ্যানেলের আপডেট থাকে এখন আপনার বলতে পারেন যে আমার ফোনে অনেক অ্যাপস আমি এখন আপডেট করতে গেলে অনেক টাকা লাগবে তাহলে আপনার কাছে আমার রিকোয়েস্ট থাকবে পসিবল হলে আপনার ফোনে যে স্কুলে আপনার খুবই প্রয়োজন সেগুলো ছাড়া বাকি এতগুলো ডিলিট করে দেন তাই না একটা কথা মনে রাখবেন আপনার ফোনের অ্যাপস টা যদি আপনি আপডেট না করে তখন সেই ফোনের অ্যাপসের জি মেইল সার্ভার রয়েছে তার সাথে কিন্তু আপনার ফোনে যে অ্যাপসটা রয়েছে সেটা কিন্তু ম্যাচ করবে না তখন কিন্তু একটা ঠিকঠাক মত কাজ করবেন আসলো কাজ করবে আপনার যখন মনে হবে যে আপনার ফোনের সমস্যা কিন্তু আসলে কিন্তু সমস্যাটা আপনার নিজের 110 না যে আপনি এই এপ্স টা আপডেট করে নিন অ্যাপস আইফোনে প্রপারলি কাজ করতেছে না সার্ভারের সাথে।

কানেক্ট হতে পারতেছে না মেইন আফসোস সার্ভারের সাথে আল্টিমেট রেসুলট আপনাকে যেটা করতে অ্যাপস আপডেট করতে হবে এবং প্রয়োজন ছাড়া আপনি আপনার অ্যাপসগুলো ডিলেট করে দেন মাথায় রাখবেন যে অ্যাপসটা আপনার মোবাইলে রাখবেন সেটা যেন নিয়মিত আপডেট করার মত ইন্টারনেট আপনার কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে তাহলে আর কোন প্রবলেম হবেনা নাম্বার চাইবেন আপনাকে যে কাজটা করতে হবে সেটা হলো আপনাদের ফোনে যদি ব্যাটারি খুলে ফেলার অপশন থাকে তাহলে ব্যাটারি টা খুলে মাঝেমাঝে রেস্ট নিতে পারেন এটা টেকনিক্যাল অনেক কাজের একটা বিষয় অথবা যদি আপনি ব্যাটারি না খুলতে পারেন সফলতার এখনকার যুগে খোলা যায় না যেতে স্মার্টফোন তাহলে আপনার ফোনটা প্রতিদিন প্রতিদিন একবার হলো ফোনটা শাটডাউন করে 10 মিনিট রেখে দিন অথবা ফোনটা একবার রিস্টার্ট দিন প্রতিদিন এটা যে বিষয়টা ব্যাকগ্রাউন্ড অনেক ছোট ছোট বিষয় আছে যেগুলো চলতে থাকে আমরা সাধারণত খুঁজে পাবোনা গুলা কিভাবে হচ্ছে কোথায় হচ্ছে অনেক কিভাবে সেই প্রসেসিং টা হচ্ছে যখন বিস্তার দিবেন না বন্ধ করে রাখবেন তখন শেয়ার নেসেসারি যদি কোন প্রশ্ন থাকে সেটাও কিন্তু বন্ধ হয়ে যাবে এবং আপনার ফোন যদি আপনি প্রতিদিন একবার বা প্রতিদিন একবার দেন দেবী আপনার অনেকদিন ধরে সিম পারফরম্যান্স পাবেন।

তো এই বিষয়গুলো মনে রাখবেন আল্লাহ তাদেরকে উদ্দেশ্য করে একটা কথা বলব আপনারা চেষ্টা করবেন একটু বেশি জিবি র্যাম দিয়ে ফোন কেনার জন্য তাহলে আগামীতে যে আপনার ফোনটা হ্যাং হবে না কম জিবি র্যাম থাকলেই তখন আসলে ফোন হ্যাং হয় আরেকটা কথা হল যারা আপনারা ধৈর্য অনেক গেমিং করেন হেবি ফটোগ্রাফির ভিডিওগ্রাফি করেন তারা আসলে কম দামি ফোন কিনে নি না কারণ আপনারা আসলে কলিঙ্গে হাই জিবি র্যামের প্লেয়ার আপনার যদি কম দামের ফোন ইউজ করেন আপনাদের হাতে ফোনটা ভালোভাবে টিকবে না এবং আপনার ইউজ করে মজা পাবেন না আপনি আপনার নিজের টাইপটা জানো সেই টাইপ অনুযায়ী ফোনকে ঠিক আছে মানে আপনি যদি বাজেট কম হয় তাহলে আপনার জোর করে আপনার টাইপ যেটা তার থেকে নিচে নেমে যদি ফোন কিনে ফোনটা আপনি ভোগ করতে পারবে না যে টাকা দিয়ে ফোনটা কিনব নি টাকা টা নষ্ট হয়ে যাবে যে কি দেখে মোবাইল কিনবেন। তাহলে আপনার কি দেখে মোবাইল কেনা উচিত বা মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা উচিত সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

সবাই ভাল থাকেন সুস্থ থাকেন ইনশাল্লাহ দেখা হবে নতুন কোন পোস্টে। আজকে এই পর্যন্তই।আমার আরো অন্যান্য পোস্ট:

যে যে ধরনের দোকান থেকে মোবাইল ফোন কেনা উচিত নয়

যে কোন প্রয়োজনে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন

facebook contact me

ধন্যবাদ

ইজি টেকিং - একটি বাংলা ব্লগিং প্লাটফর্ম। এখানে বাংলা ভাষায় শিক্ষা ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন জানা-অজানা তথ্য প্রকাশ করা হয়। বাংলা ভাষায় সবার মাঝে সঠিক তথ্য পৌছে দেয়াই আমাদের লক্ষ্য।

Leave a Comment