অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়

অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়

আজকে আমি আপনাদের সাথে এই আর্টিকেলের ভিতরে অনলাইন থেকে আয় করার সহজ কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করব। অনেকেই আছেন যারা অনলাইন থেকে ঘরে বসেই টাকা ইনকাম করতে চায়। অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে হলে সব থেকে বেশি যে জিনিসটার দরকার হয় সেটা হচ্ছে আপনার ইচ্ছা আর ধৈর্যশক্তি।

অনলাইনে থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য কী কী দরকার হতে পারে?

অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়

1.  Mobile /Laptop/ Computer

2.  Internet Conection

3.  মেধা

4.  শ্রম

5.  সময়

বর্তমানে ২০২২ সালে এসে অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য আপনাদেরকে শুধু আপনাদের মেধা, শ্রম ও সময়ের দরকার হবে। আপনারা কাছে যদি কিন্তু এই ৩টি জিনিস থাকে তাহলে কিন্তু আপনারা এইগুলো দিয়েই সঠিক ভাবে কাজে লাগিয়ে কাজ করতে পারবেন।

এরপরে শুধু ১টি মোবাইল/ল্যাপটপ/কম্পিউটার এর সাথে একটি ইন্টারনেট কানেকশনের মাধ্যমেই আপনারা চাইলে ঘরে বসে অনলাইনে থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

১ . ব্লজ্ঞিং করে টাকা আয় করতে পারবেন

বর্তমান সময়তে এখন কিন্তু  প্যাসিভ ইনকামের জন্য ব্লজ্ঞিং অনেক ভাল একটা উপায় বলা যায়। ব্লজ্ঞিং করলে আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইটের ভিতরে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপণ দেখিয়ে সেখান থেকে বেশ ভাল পরিমানে একটা টাকা আয় করতে পারবেন। বাংলাদেশের ভিতরে অনেক ব্লজ্ঞার আছে যারা কিন্তু প্রতি মাসে ৩০ হাজার ডলার পর্যন্ত ইনকাম করে থাকে ব্লজ্ঞিং করে।

আর বাংলাদেশের বাহিরে যারা আছেন তারা তো অনেক টাকা ইনকাম করেন এই ব্লজ্ঞিং করে , বাহিরের দেশের এমন অনেক ওয়েবসাইট ও আছে যে সকল ওয়েবসাইট Google Adsense এর বিজ্ঞাপণ দেখিয়েই শুরু ৫ কুটি এর থেকে ও বেশি টাকা আয় করে , যেমন – mashabel.com এইওয়েবসাইটটি প্রতি মাসে গুগল অ্যাডসেন্স থেকে ৫ কুটির বেশি টাকা আয় করে।

এরকমের আর অনেক ওয়েবসাইট আছে। আপনারা তাহলে বুজতেই পারতেছেন যে ব্লজ্ঞিং করে কি পরিমানে টাকা আয় করা সম্ভব। তবে এই ব্লজ্ঞিং এর কাজ করতে হলে আপনাদের   ইচ্ছা আর ধৈর্যশক্তি থাকা লাগবে তা না হলে আপনারা বেশি ধুরে এগিয়ে যেতে পারবেন না।

২. Facebook থেকে আয় করার উপায়

ফেসবুক থেকে আয় করার সাথে বর্তমানে অনেকেই পরিচিত। ফেসবুক থেকে আপনারা অনেক ভাবে টাকা আয় করতে পারবেন। আপনারা ফেসবুকের ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন দিয়ে ও বেশ ভাল পরিমানে একটা টাকা আয় করত্যে পারবেন। ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন যদি আপনারা আপনাদের ফেসবুক পেজ এর ভিতরে দেখাতে চান তাহলে আপনাদের ফেসবুক পেজের ভিতরে ১০০০০  Followers আর ৩০০০০ ঘণ্টা watch time থাকা লাগবে।

আর এইগুলো Compelted করার পরে আপনারা আপনাদের ফেসবুক পেজটিকে Monitization এর জন্য অ্যাপ্লাই করবেন । তারপরে যখন আপনাদের ফেসবুক পেজের ভিতরে ফেসবুক এর এই সার্ভিসটি ওপেন হয়ে যাবে তখন আপনারা আপনাদের ফেসবুক পেজের ভিতরে ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন দিয়েই টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুকে ভিডিও দেখার সময় আপনারা  আপনি খেয়াল করলে দেখতে পারবেন যে,  কিছু ভিডিওর শুরুর দিকে কিংবা মাঝখানে বিজ্ঞাপন এসে যায়। আর এই সকল বিজ্ঞাপন গুলোকেই ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন বলা হয়ে থাকে। এটা অনেকটা বলতে পারেন Google adsense এর মত।

৩. ফটোগ্রাফি করতে পারেন

আপনাদের যদি ছবি তোলার শখ থাকে,  তাহলে আপনারা কিন্তু আপনাদের এই শখটিকে কাজে লাগিয়েই অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। আপনারা যদি ভাল মানের ছবি তুলতে পারেন তাহলে সেগুলোকে অনলাইনে অনেক ওয়েবসাইট আছে সেখানে আপনারা সেগুলোকে বিক্রি করে দিতে পারবেন। নিচে কিছু ওয়েবসাইট এর নাম দেওয়া হল যেখানে আপনারা আপনাদের তোলা ছবিগুলোকে  বিক্রি করতে পারবেন।

·       Shutterstock.com

·       smugmug.com

·       500px.com

·       photoshelter.com​

৪. আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করতে পারেন

আপনাদের যদি লেখালেখির হাত অনেক ভাল থাকে তাহলে আপনারা একজন আর্টিকেল রাইটার হিসেবে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে কিন্তু ফ্রীলাঞ্চার marketplace গুলোতে আর্টিকেল রাইটার দের অনেক চাহিদা। কারন প্রতিদিন লাখ লাখ ওয়েবসাইট গুগলে পাবলিশ করা হচ্ছে, আর এই সকল ওয়েবসাইট এর জন্য আর্টিকেলের দরকার হয়।

তাই আপনারা যদি একজন কোন বিষয় নিয়ে অনেক কিছু জানেন বা আপনাদের লেখালেখি করতে ভাল লাগে তাহলে কিন্তু আপনারা আপনাদের এই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়েই বেশ ভাল পরিমানে একটা টাঁকা আয় করতে পারবেন।

৫. ভিডিও এডিটিং হিসেবে কাজ করতে পারেন

আপনারা যদি ভিডিও এডিটিং ভালভাবে করতে পারেন, তাহলে আপনারা চাইলেই কিন্তু একজন Video Editing এর কাজ শুরু করতে পারবেন। আপনারা বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেল এর জন্য তাদের ভিডিও গুলোকে এডিট করে দিতে পারবেন , আর তার বদলে তাদের কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিমানে একটা টাকা আপনারা নিতে পারবেন।

বর্তমানে কিন্তু Freelancer Marketplace গুলোতেও ভিডিও এডিটরের দরকার হয়ে থাকে ,আপনারা ফ্রীলাঞ্চার marketplace গুলোতে একটু ঘাঁটলেই বুজতে পারবেন। আর ভিডিও এডিটর এর চাহিদা আস্তে আস্তে বারতেই থাকবে কমবে না।

আপনারা যদি ভালো কাজ জানেন তাহলে কিন্তু আপনারা যেকোনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানে ও কাজ পাবেন। এছাড়াও ইন্টারনেটের থেকে ও আপনারা কিন্তু অনেক টাকা আয় করে নিতে  পারবেন খুব সহজেই ।

৬.  এসইও স্পেশালিস্ট হিসেবে কাজ করতে পারেন

আপনারা যদি Seo এর কাজ জানেন তাহলে কিন্তু আপনারা বিভিন্ন কোম্পানি বা বিভিন্ন ওয়েবসাইট এর জন্য এসইও এর কাজ করে দিতে পারবেন।

গুগলে ভালো রেঙ্ক পাবার জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন  এসইও এর বিকল্প নেই। বর্তমানে সময়ে এই  কাজের চাহিদা আকাশ ছোঁয়া। এসইও যদি ওয়েবসাইটের ভিতরে না করা হয় তাহলে ওয়েবসাইটে কখনই ভিসিটর আসবে না।

তাই আপনারা এসইও এর কাজ করে কিন্তু প্রতি মাসে $১০০০-$৫০০০+ বা তার থেকে ও বেশি আয় করতে পারবেন। আপনারা যত বেশি অবিজ্ঞ হবেন মানে আপনাদের যত বেশি দক্ষতা থাকবে , আপনারা তত বেশি পরিমানে টাকা এখান থেকে আয় করে নিতে পারবেন।

৭. গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে পারেন

আপনারা যদি Graphics Degain এর কাজ জানেন তাহলে কিন্তু আপনারা ঘরে বসেই বিভিন্ন কোম্পানির কাজ করে দিয়ে বেশ ভাল পরিমানে একটা টাকা আয় করতে পারবেন। বর্তমানে কিন্তু Graphics Degain এর কাজ যারা করে তাদের অনেক চাহিদা।

ইন্টারনেট দুনিয়ার  কথা চিন্তা করলেই কিন্তু বুঝা যায় ১টি ওয়েবসাইটের লোগো হতে শুরু করে অ্যাড দেওয়ার জন্য  ব্যনার কাজ কিন্তু ১ জন গ্রাফিক্স ডিজাইনার করে থাকেন। এইটুকু থেকেই কিন্তু আসলে বুঝে যাওয়া যায় এই দুনিয়াতে মানে  গ্রাফিক্স ডিজাইনারের চাহিদা কি পরিমানে আছে।

১ জন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের মাসিক ইনকাম এর পরিমান কম করে হলে ও  $৪০০০ থেকে $১০,০০০+ অনায়সেই হয়ে যায়। আপনারা এই কাজে যত বেশি দক্ষ হবেন আর ভালো মানের কাজ আপনারা ডেলিভারি দিতে পারবেন ততই কিন্তু আসলে আপনাদের ডিমান্ড আর ইনকাম বেড়ে যেতে থাকবে।

৮. টি-শার্ট ডিজাইন করতে পারেন

আপনারা যদি ভাল মানের  টি শার্ট ডিজাইন বানাতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনারা বিভিন্ন Company এর জন্য টি শার্ট ডিজাইন বানিয়েই বেশ ভাল পরিমানে একটা টাঁকা আয় করতে পারবেন। আপনারা কিন্তু চাইলে Amazon এও আপনাদের বানানো টি শার্ট ডিজাইন গুলোকে বিক্রি করতে পারবেন।

আর এখানে কিন্তু আপনাদেরকে প্রতিটা টি শার্ট ডিজাইন করার জন্য টাকা দেওয়া  হবে। তাছাড়া ও আপনারা চাইলে লোকাল Market গুলোতেও আপনাদের বানানো টি শার্ট ডিজাইন গুলোকে দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে বেশ ভাল পরিমানে একটা টাঁকা নিতে পারবেন।

আমাদের শেষ কথা

আশা করি যে,আপনারা আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে জানতে পেরেছেন অনলাইন থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় সেই বিষয় সম্পর্কে। আর এইরকমের নতুন নতুন সকল তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইট এর সাথেই থাকুন।যে কোন প্রয়োজনে আমার সাথে যোগাযোগ করুন

facebook contact me

আমার আর ও অন্যান্য পোস্ট

ডিজিটাল মার্কেটিং পরিপূর্ন গাইডলাইন ২০২২

ধন্যবাদ

ইজি টেকিং - একটি বাংলা ব্লগিং প্লাটফর্ম। এখানে বাংলা ভাষায় শিক্ষা ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন জানা-অজানা তথ্য প্রকাশ করা হয়। বাংলা ভাষায় সবার মাঝে সঠিক তথ্য পৌছে দেয়াই আমাদের লক্ষ্য।

Leave a Comment